Dhaka , Thursday, 13 June 2024
নিবন্ধন নাম্বারঃ ১১০, সিরিয়াল নাম্বারঃ ১৫৪, কোড নাম্বারঃ ৯২
শিরোনাম ::
জনপ্রিয়তা ঈর্ষান্বিত হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী রফিক আমার নামে মিথ্যাচার চালাচ্ছে- আবুল বাশার  বাদশা।। নিখোঁজের দুদিন পর মাদরাসা ছাত্রের মরদেহ মিলল ঘাটলার নিচে।। ঝালকাঠিতে হত্যা মামলায় সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৪ জনের যাবজ্জীবন।। সুন্দরগঞ্জে পশুর হাট নিয়ে পুলিশ-জনতা সংঘর্ষে ৩ রাউন্ড গুলি বিনিময়- পুলিশসহ আহত ১০।। নোয়াখালীতে পানিতে ডুবে দুই বোনের মৃত্যু।। পাবনায় শ্যালো ইঞ্জিনচালিত নছিমন নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ২ জন নিহত আহত -৭ জন।। রূপগঞ্জ কাঞ্চন পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী রফিক সমর্থকদের উপর হামলা।। ৩৬ দিন পর যুবকের লাশ উত্তোলন- ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের।। শিবচরে আগুনে ১৩ গরু মারা গেছে।। দাবি হামার একটাই ঠাকুরগাঁওয়ে বিমানবন্দর ও মেডিকেল কলেজ চাই।। ঈদ উপলক্ষ্যে হিলিতে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসাবে ভিজিএফের চাল বিতারণ।। প্রভাবশালীরা সরকারী হাটের জায়গা দখল করে দোকান ঘর নির্মাণ-হাট বসছে মহাসড়কের দুই পার্শ্বে।। রাজমিস্ত্রী ছাড়াই পাবনার তাওহীদ তৈরি করেছেন দৃষ্টিনন্দন দোতলা বাড়ি।। সদরপুরে রাসেল ভাইপার আতঙ্ক- ছয় মাসে ৫ জনের মৃত্যু।। চাঁদাবাজিতে অতিষ্ঠ কদমতলী – ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে নারীর বিষপান।। রাজাপুরে মাঠ দিবস ও কারিগরী আলোচনা অনুষ্ঠিত।। ঝালকাঠিতে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ হস্তান্তর।। রূপগঞ্জে ভুল চিকিৎসায় প্রসুতির মৃত্যু।। রূপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের উন্মুক্ত বাজেট ঘোষণা।। তিতাসে পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা উপলক্ষ্যে মা সমাবেশ অনুষ্ঠিত।। তিতাসে আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত।। বিশ্বকাপ উন্মাদনায় মেতেছে ওরাও।। রূপগঞ্জে মেয়র প্রার্থীর পোষ্টার ছিঁড়ে ফেলার অভিযোগ।। মোরেলগঞ্জের ৫০ পরিবার পেলো মাথাগোঁজার ঠাই।। রামগঞ্জের লামনগর সমবায় সমিতির অফিসে দুধর্ষ চুরি- ৫ লক্ষাধিক টাকা লুটে নিয়েছে চোরেরা।। প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক সদরপুরে জমি ও গৃহ হস্তান্তর কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন।। শরীয়তপুরের জাজিরাকে ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষনা।। ঠাকুরগাঁয়ে ১শ বোতল ফেনসিডিল সহ গ্রেফতার শিশু।। পাবনায় ফের কবরস্থান থেকে কঙ্কাল চুরি হিড়িক।। গাজীপুরে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন- ৪ জনকে টাকা জরিমানা।।

পাবনায় ৪ হাজার ৭২১ হেক্টর জমিতে আম ও লিচুর বাম্পার ফলন।।

  • Reporter Name
  • আপডেট সময় : 10:01:42 am, Sunday, 19 May 2024
  • 23 বার পড়া হয়েছে

পাবনায় ৪ হাজার ৭২১ হেক্টর জমিতে আম ও লিচুর বাম্পার ফলন।।

পাবনা প্রতিনিধি।।
এবার আবহাওয়া বেশ অনুকূলে। প্রাকৃতিক কোনো দুর্যোগ না হলে পাবনায় এবার আম-লিচুর বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। যা বিক্রি করে অন্তত দেড় হাজার কোটি টাকা আয় হতে পারে। এতে হাসি ফুটেছে চাষিদের মুখে।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের তথ্যমতে-প্রতিবছর জেলায় গড়ে সাড়ে ৩ হাজার থেকে ৫ হাজার হেক্টর জমিতে লিচু চাষ হয়। এ বছর আবাদ হয়েছে ৪ হাজার ৭২১ হেক্টর জমিতে। এরমধ্যে শুধু ঈশ্বরদীতে আবাদ হয়েছে ৩ হাজার ১শ হেক্টর। 
তবে যে কারণেই হোক- গত বছর এমনিতেই লিচুতে বেশি মুকুল ছিল না। তার ওপর বৈরী আবহাওয়া বিশেষ করে তীব্র দাবদাহে মকুল গাছ থেকে ঝরে পড়ে।
জানা গেছে- নব্বইয়ের দশক থেকে পাবনার ঈশ্বরদীতে সীমিত আকারে লিচুর চাষ শুরু হয়। এখন তা পুরো জেলায় বিস্তৃত হয়েছে। এক কথায় এখন লিচুতে বিপ্লব ঘটেছে পাবনায়। এটি এখন জেলার অন্যতম প্রধান অর্থকরী ফসল। 
কাজেই এ এলাকায় অনেক কৃষকের স্বপ্নের আরেক নাম লিচু। পাবনার সফল কৃষকদের অন্যতম কৃষিতে তিনবার রাষ্ট্রীয় পদকপ্রাপ্ত কৃষক শাহজাহান আলী ওরফে পেঁপে বাদশা জানান- এখন ঈশ্বরদী- আটঘরিয়া-চাটমোহর- পাবনা সদরসহ জেলার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে ব্যাপকভাবে লিচু চাষ হচ্ছে। গত এক দশকে পদ্মার চরাঞ্চলে শত শত বিঘা লিচু বাগান গড়ে তোলা হয়েছে।
তবে ঈশ্বরদীতে প্রকৃতপক্ষে আরও বেশি জমিতে লিচু আবাদ হয়ে থাকে বলে জানান চাষিরা। তারা জানান, প্রতিবছর পাবনা থেকে ৫০০ থেকে ৭০০ কোটি টাকার লিচু বিক্রি হয়ে থাকে। এ বছর ভালো ফলন হলে কমপক্ষে ৮শ কোটি টাকার লিচু বিক্রি হতে পারে।
কৃষি বিভাগ এবং প্রতিষ্ঠিত লিচু চাষিদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যে জানা গেছে, ঈশ্বরদী ছাড়াও সদরে এবার ৬৫০০ হেক্টর, চাটমোহরে ২৫০০ হেক্টর এবং আটঘরিয়া ও সুজানগরসহ কয়েকটি উপজেলায় কমবেশি লিচু চাষ হয়েছে। 
ঈশ্বরদী উপজেলার সলিমপুর, সাহাপুর, দাশুরিয়া ও লক্ষীকুণ্ডা ইউনিয়নসহ এ উপজেলায় অন্তত ২৫ হাজার লিচু চাষি রয়েছেন। এসব এলাকার এমন কোনো বাড়ি নেই যে বাড়িতে অন্তত দুটি লিচু গাছ নেই।
জেলা প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান, এ বছর বাম্পার ফলনের আশা করছি। এতে প্রায় ৭০০ থেকে ৮০০ কোটি টাকার লিচু বিক্রি হতে পারে।
ঈশ্বরদীর লিচু চাষি কেতাব মন্ডল ওরফে লিচু কেতাব জানান-গত বছর গাছ থেকে লিচু পাড়ার একদিন পরই দেখা যায় গাছের অধিকাংশ লিচু কালো হয়ে ঝরে পড়ে। সব মিলে কৃষকরা ভালো ফলন পাননি। তবে এবার গাছে গাছে প্রচুর মুকুল ধরেছে।
লিচু চাষিরা জানান-গাছ ভেদে লিচুর সংখ্যা পাওয়া যায়। পুরাতন গাছে ভালো ফলন হলে ১০ হাজার থেকে ১৫ হাজার লিচু ধরে। এ বছর প্রতি হাজার লিচু গড়ে ১ হাজার ২শ টাকা ধরে গাছ থেকে বিক্রি হয়েছে।
এদিকে পাবনা সদর-ঈশ্বরদী-আটঘরিয়া-সুজানগর-চাটমোহরসহ বিভিন্ন এলাকায় বাণিজ্যিকভাবে আম চাষ হচ্ছে। এবার সদরের দাপুনিয়া-হেমায়েতপুর-মধুপুর-মালঞ্চি-ঈশ্বরদীর দাশুড়িয়া-কালিকাপুর-মাধপুর-সাহাপুর-লক্ষীকুন্ডা-সলিমপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে আমের চাষ হয়েছে। 
এ বছর যেসব আম চাষ হয়েছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য-আম্রপালি- লেংড়া, বারি-৪- বারি-১৪- বারি-১১- বারি-৮- গৌরমতি- থাইগ্রিন- গোপালভোগ- চোষা- হাঁড়িভাঙ্গা- হিমসাগর- ফজলি -ব্যানানা ম্যাঙ্গো-ব্রুনাইকিং-কিং অব চাকা পাত- মিয়াচাকি- বৈশাখী- সিন্ধু ইত্যাদি।
কৃষক শাহজাহান আলী ওরফে পেঁপে বাদশা জানান- তিনি এ বছর ২ হেক্টর জমিতে আম চাষ করেছেন। দেশি-বিদেশি কমপক্ষে ২০ জাতের আম রয়েছে তার বাগানে। এ বছর প্রচুর মুকুল ধরেছে। ফলনের সঙ্গে দামও ভালো পাবেন বলে আশাবাদী তিনি।
পাবনা সদর উপজেলার মধুপুরের খ্যাতিমান কৃষক মো. মকবুল হোসেন জানান- এবার তার ১৫ বিঘা জমিতে আম চাষ হয়েছে। তার বাগানে লেংড়া- গোপালভোগ- গৌরমতি- বারি-৪- আম্রপালি- ফজলি- হিমসাগরসহ ২০ থেকে ২২ জাতের আম রয়েছে।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, গত বছর পাবনায় ২ হাজার ৭৩০ হেক্টর জমিতে আমের আবাদ করে ৪৫ হাজার টন আম উৎপাদন হয়। এবার অনেক বেশি মুকুল আসায় আমের বাম্পার ফলনের আশা করছেন তারা। আম চাষিরা জানান, এবার ফলন ৫০ হাজার টন ছাড়িয়ে যেতে পারে। ধারণা করা হচ্ছে- এবার পাবনার আম থেকে প্রায় ৭শ কোটি টাকা আয় হবে।
  
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক জামাল উদ্দিন বলেন, গত বছরের চেয়ে এবার আমের মুকুল বেশি ধরেছে। আবহাওয়াও ভালো। এতে গতবারের চেয়ে ভালো ফলনের আশা করা হচ্ছে। 
  
তিনি বলেন- কৃষকদের সঙ্গে আলাপ করে রাজশাহীর সঙ্গে মিল রেখে আম নামানোর দিন ধার্য করা হবে। তবে সাধারণত মে মাসের মাঝামাঝি থেকে আম পাড়া শুরু হয়ে জুলাই পর্যন্ত অব্যাহত থাকার কথা। লিচু স্বল্প মেয়াদি ফল এবং এটি মে মাসের মাঝামাঝি থেকে জুনের মাঝামাঝি পর্যন্ত থাকে।

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ও অন্যান্য তথ্য সঞ্চয় করে রাখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

রূপগঞ্জে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রীর নির্দেশে নির্মিত চার সড়কের উদ্বোধন।।

পেকুয়ায় বেড়িবাঁধ ভেঙে লোকালয়ে প্লাবিত,২ শত পরিবার পানিবন্দী।।

জনপ্রিয়তা ঈর্ষান্বিত হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী রফিক আমার নামে মিথ্যাচার চালাচ্ছে- আবুল বাশার  বাদশা।।

পাবনায় ৪ হাজার ৭২১ হেক্টর জমিতে আম ও লিচুর বাম্পার ফলন।।

আপডেট সময় : 10:01:42 am, Sunday, 19 May 2024
পাবনা প্রতিনিধি।।
এবার আবহাওয়া বেশ অনুকূলে। প্রাকৃতিক কোনো দুর্যোগ না হলে পাবনায় এবার আম-লিচুর বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। যা বিক্রি করে অন্তত দেড় হাজার কোটি টাকা আয় হতে পারে। এতে হাসি ফুটেছে চাষিদের মুখে।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের তথ্যমতে-প্রতিবছর জেলায় গড়ে সাড়ে ৩ হাজার থেকে ৫ হাজার হেক্টর জমিতে লিচু চাষ হয়। এ বছর আবাদ হয়েছে ৪ হাজার ৭২১ হেক্টর জমিতে। এরমধ্যে শুধু ঈশ্বরদীতে আবাদ হয়েছে ৩ হাজার ১শ হেক্টর। 
তবে যে কারণেই হোক- গত বছর এমনিতেই লিচুতে বেশি মুকুল ছিল না। তার ওপর বৈরী আবহাওয়া বিশেষ করে তীব্র দাবদাহে মকুল গাছ থেকে ঝরে পড়ে।
জানা গেছে- নব্বইয়ের দশক থেকে পাবনার ঈশ্বরদীতে সীমিত আকারে লিচুর চাষ শুরু হয়। এখন তা পুরো জেলায় বিস্তৃত হয়েছে। এক কথায় এখন লিচুতে বিপ্লব ঘটেছে পাবনায়। এটি এখন জেলার অন্যতম প্রধান অর্থকরী ফসল। 
কাজেই এ এলাকায় অনেক কৃষকের স্বপ্নের আরেক নাম লিচু। পাবনার সফল কৃষকদের অন্যতম কৃষিতে তিনবার রাষ্ট্রীয় পদকপ্রাপ্ত কৃষক শাহজাহান আলী ওরফে পেঁপে বাদশা জানান- এখন ঈশ্বরদী- আটঘরিয়া-চাটমোহর- পাবনা সদরসহ জেলার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে ব্যাপকভাবে লিচু চাষ হচ্ছে। গত এক দশকে পদ্মার চরাঞ্চলে শত শত বিঘা লিচু বাগান গড়ে তোলা হয়েছে।
তবে ঈশ্বরদীতে প্রকৃতপক্ষে আরও বেশি জমিতে লিচু আবাদ হয়ে থাকে বলে জানান চাষিরা। তারা জানান, প্রতিবছর পাবনা থেকে ৫০০ থেকে ৭০০ কোটি টাকার লিচু বিক্রি হয়ে থাকে। এ বছর ভালো ফলন হলে কমপক্ষে ৮শ কোটি টাকার লিচু বিক্রি হতে পারে।
কৃষি বিভাগ এবং প্রতিষ্ঠিত লিচু চাষিদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যে জানা গেছে, ঈশ্বরদী ছাড়াও সদরে এবার ৬৫০০ হেক্টর, চাটমোহরে ২৫০০ হেক্টর এবং আটঘরিয়া ও সুজানগরসহ কয়েকটি উপজেলায় কমবেশি লিচু চাষ হয়েছে। 
ঈশ্বরদী উপজেলার সলিমপুর, সাহাপুর, দাশুরিয়া ও লক্ষীকুণ্ডা ইউনিয়নসহ এ উপজেলায় অন্তত ২৫ হাজার লিচু চাষি রয়েছেন। এসব এলাকার এমন কোনো বাড়ি নেই যে বাড়িতে অন্তত দুটি লিচু গাছ নেই।
জেলা প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান, এ বছর বাম্পার ফলনের আশা করছি। এতে প্রায় ৭০০ থেকে ৮০০ কোটি টাকার লিচু বিক্রি হতে পারে।
ঈশ্বরদীর লিচু চাষি কেতাব মন্ডল ওরফে লিচু কেতাব জানান-গত বছর গাছ থেকে লিচু পাড়ার একদিন পরই দেখা যায় গাছের অধিকাংশ লিচু কালো হয়ে ঝরে পড়ে। সব মিলে কৃষকরা ভালো ফলন পাননি। তবে এবার গাছে গাছে প্রচুর মুকুল ধরেছে।
লিচু চাষিরা জানান-গাছ ভেদে লিচুর সংখ্যা পাওয়া যায়। পুরাতন গাছে ভালো ফলন হলে ১০ হাজার থেকে ১৫ হাজার লিচু ধরে। এ বছর প্রতি হাজার লিচু গড়ে ১ হাজার ২শ টাকা ধরে গাছ থেকে বিক্রি হয়েছে।
এদিকে পাবনা সদর-ঈশ্বরদী-আটঘরিয়া-সুজানগর-চাটমোহরসহ বিভিন্ন এলাকায় বাণিজ্যিকভাবে আম চাষ হচ্ছে। এবার সদরের দাপুনিয়া-হেমায়েতপুর-মধুপুর-মালঞ্চি-ঈশ্বরদীর দাশুড়িয়া-কালিকাপুর-মাধপুর-সাহাপুর-লক্ষীকুন্ডা-সলিমপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে আমের চাষ হয়েছে। 
এ বছর যেসব আম চাষ হয়েছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য-আম্রপালি- লেংড়া, বারি-৪- বারি-১৪- বারি-১১- বারি-৮- গৌরমতি- থাইগ্রিন- গোপালভোগ- চোষা- হাঁড়িভাঙ্গা- হিমসাগর- ফজলি -ব্যানানা ম্যাঙ্গো-ব্রুনাইকিং-কিং অব চাকা পাত- মিয়াচাকি- বৈশাখী- সিন্ধু ইত্যাদি।
কৃষক শাহজাহান আলী ওরফে পেঁপে বাদশা জানান- তিনি এ বছর ২ হেক্টর জমিতে আম চাষ করেছেন। দেশি-বিদেশি কমপক্ষে ২০ জাতের আম রয়েছে তার বাগানে। এ বছর প্রচুর মুকুল ধরেছে। ফলনের সঙ্গে দামও ভালো পাবেন বলে আশাবাদী তিনি।
পাবনা সদর উপজেলার মধুপুরের খ্যাতিমান কৃষক মো. মকবুল হোসেন জানান- এবার তার ১৫ বিঘা জমিতে আম চাষ হয়েছে। তার বাগানে লেংড়া- গোপালভোগ- গৌরমতি- বারি-৪- আম্রপালি- ফজলি- হিমসাগরসহ ২০ থেকে ২২ জাতের আম রয়েছে।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, গত বছর পাবনায় ২ হাজার ৭৩০ হেক্টর জমিতে আমের আবাদ করে ৪৫ হাজার টন আম উৎপাদন হয়। এবার অনেক বেশি মুকুল আসায় আমের বাম্পার ফলনের আশা করছেন তারা। আম চাষিরা জানান, এবার ফলন ৫০ হাজার টন ছাড়িয়ে যেতে পারে। ধারণা করা হচ্ছে- এবার পাবনার আম থেকে প্রায় ৭শ কোটি টাকা আয় হবে।
  
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক জামাল উদ্দিন বলেন, গত বছরের চেয়ে এবার আমের মুকুল বেশি ধরেছে। আবহাওয়াও ভালো। এতে গতবারের চেয়ে ভালো ফলনের আশা করা হচ্ছে। 
  
তিনি বলেন- কৃষকদের সঙ্গে আলাপ করে রাজশাহীর সঙ্গে মিল রেখে আম নামানোর দিন ধার্য করা হবে। তবে সাধারণত মে মাসের মাঝামাঝি থেকে আম পাড়া শুরু হয়ে জুলাই পর্যন্ত অব্যাহত থাকার কথা। লিচু স্বল্প মেয়াদি ফল এবং এটি মে মাসের মাঝামাঝি থেকে জুনের মাঝামাঝি পর্যন্ত থাকে।