Dhaka , Saturday, 18 May 2024
নিবন্ধন নাম্বারঃ ১১০, সিরিয়াল নাম্বারঃ ১৫৪, কোড নাম্বারঃ ৯২
শিরোনাম ::
নির্বাচনী প্রচারণার সময় ককটেল বিস্ফোরনের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন।। সড়কের শৃংখলা নিয়ে মতবিনিময় করেছেন ওয়ারী ট্রাফিক পুলিশ।। রূপগঞ্জে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থীর পক্ষে প্রচারনা।। সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন চেয়ারম্যান প্রার্থী সফিউল ইসলাম।। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে দুর্গাপুরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত।। আনোয়ার খাঁন মডার্ণ ডায়াগনস্টিক সেন্টার রামগঞ্জ শাখার শুভ উদ্বোধন।।  প্রধানমন্ত্রীর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে ইবিতে ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল।। তিতাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত।। যমুনায় সিবিএ নির্বাচন- রবিউল সভাপতি শাহজাহান সম্পাদক নির্বাচিত।। আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব হলেন রামগঞ্জের কৃতি সন্তান আবদুর রহমান খাঁন।। মোরেলগঞ্জের পোলেরহাট বাজারে আগুনে ১১ টি দোকান পুড়ে ছাই-ক্ষতির পরিমান কোটি টাকা।। শরীয়তপুরে রাসেলস ভাইপার সাপ পিটিয়ে মারলো কৃষকরা।। ২২ বছর পর স্ত্রী হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত স্বামী গ্রেপ্তার।। জাজিরায় মাতৃদুগ্ধ বিষয়ে অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত।। ধামরাই সরকারি কলেজের অনার্স ৪র্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠিত।। মোরেলগঞ্জে তরুণ সংঘ ক্লাবের উদ্যোগে অধ্যক্ষ শাহাবুদ্দিন তালুকদারের স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত।। পাবনায় ফ্যানের বাতাসে ধান উড়াতে গি‌য়ে কৃষকের মৃত্যু।। মাদারীপুরে ভোক্তা অধিকারে অভিযান- দুই ব্যবসায়ীকে জরিমানা।। মোটরসাইকেল মার্কার উৎসবমুখর উঠান বৈঠক।। নারায়ণগঞ্জ টিভি সাংবাদিক ফোরামের ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা।। জাজিরা পৌর সড়কে বছর পেরোলেও আলোর মুখ দেখেনি আলোকসজ্জা প্রকল্প।। রামগঞ্জে আনারস প্রতীকের উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত।। পাবনায় পানি উন্নয়ন বোর্ডে -পাউবো- কর্মরত ৩৭ কর্মকর্তা-কর্মচারী একযোগে বদলি আবেদনে সমালোচনার ঝড়।। মোংলায় বীর মুক্তিযোদ্ধা আ: হামিদ শেখ কে গার্ড অব অনার।। দেবহাটায় পুষ্টি সপ্তাহ উদ্যাপন।। সখিপুর ইউনিয়ন স্ট্যান্ডিং কমিটির সভা।। দেবহাটা বাল্যবিবাহ ও নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে সভা।।  ঘুম থেকে উঠছে দেখতাম অস্ত্র আমাদের দিকে তাককরা- নাবিক রাজু।। দাউদকান্দিতে আইফোন না পেয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে এক কিশোরের আত্মহত্যা।। আটঘরিয়ায় হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে মোটরসাইকেল-ঘোড়া।।

নেই নাট ক্লিপ ঝুঁকি নিয়েই চলে -ট্রেন।।

  • Reporter Name
  • আপডেট সময় : 08:48:54 am, Wednesday, 1 May 2024
  • 20 বার পড়া হয়েছে

নেই নাট ক্লিপ ঝুঁকি নিয়েই চলে -ট্রেন।।

মৌলভীবাজার-প্রতিনিধি।।
চুরি হচ্ছে নাট-বল্টু-ক্লিপ ঝুঁকি নিয়ে চলছে ট্রেনসিলেট-আখাউড়া রেলপথের শ্রীমঙ্গল থেকে কুলাউড়া পর্যন্ত বেশকিছু পাহাড়ি এলাকা- ৮টি কালভার্ট ও সেতু ঝুঁকিপূর্ণ। এই পথ দিয়ে ঝুঁকি নিয়েই চলছে ট্রেন। নাট-বল্টু বা ক্লিপ মাঝে মধ্যে পরিবর্তন করা হলেও রেললাইন সংস্কারের কোনো উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না। নাট-বল্টু বা ক্লিপার -ক্লিপ- না থাকায় তীব্র গরমে রেললাইন বেঁকে গিয়ে বাকলিং হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ ছাড়া নিয়মিত দেখাভালের অভাবে রেললাইনের ক্লিপ-হুক চুরি হচ্ছে প্রতিনিয়ত। কোথাও নাট থাকলেও বল্টু নেই। সেখানে বল্টুর পরিবর্তে সুতো দিয়ে বাধা হয়েছে।
  
সরেজমিনে দেখা গেছে, সিলেট-আখাউড়া রেলপথের শ্রীমঙ্গল থেকে কুলাউড়া পর্যন্ত রেললাইনের শ্রীমঙ্গল- ভানুগাছ- শমশেরনগর- মনু- টিলাগাঁও- লংলা ও কুলাউড়াস্টেশনের মাঝে অনেক স্থানে ক্লিপ-হুক নেই। ক্লিপ- হুক- ফিশ প্লেটসহ লোহার যন্ত্রাংশ চুরি হচ্ছে প্রতিনিয়ত। তবু কর্তৃপক্ষ নিরাপত্তার কোনো ব্যবস্থা করছে না। অনেক স্থানে রেললাইনের স্লিপারে নেই নাট-বল্টু। কোথাও নাট থাকলে বল্টুর পরিবর্তে সুতো দিয়ে বাঁধা হয়েছে। মেরামতের জন্য পুরাতন কাট ব্যবহার করা হয়েছে। অনেক যন্ত্রাংশ চুরি হওয়ার পরও লাগানো হচ্ছে না। এগুলো জোড়াতালি দিয়ে চালিয়ে দেওয়া হচ্ছে। নাট-বল্টু ও ক্লিপ না থাকার কারণে তীব্র গরমে লাইন বাকলিং হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। পুরাতন সেতু ও কালভার্ট ঝুঁকিপূর্ণ হলেও সংস্কার না হওয়ায় অনেক সময় বড় বড় দুর্ঘটনার কবলে পড়ে ট্রেন। ২০১৮ সালে মৌলভীবাজারের কুলাউড়া সেতু ভেঙে ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটে। গত বছর লাউয়াছড়ায় গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ট্রেনের কয়েকটি বগি উল্টে যায়। এ ছাড়া রেলপথ ত্রুটিপূর্ণ হওয়ায় লাউয়াছড়া উদ্যানের পাহাড়ি এলাকায় নিয়মিত ট্রেন আটকা পড়ে। ট্রেনের নিয়মিত যাত্রী ঝুলন চক্রবর্তী ও রুনা চক্রবর্তী বলেন, আমরা প্রায় সময় বিভিন্ন কাজে ট্রেনে আসা-যাওয়া করি। সিলেট থেকে শায়েস্তাগঞ্জ স্টেশন পর্যন্ত রেলপথ খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। এই অঞ্চলে ট্রেন চলার সময় অনেক ভয় হয়। কোথাও দ্রুতগতিতে চলে আবার কোথাও ধীরগতিতে। রেলওয়ের তদারকির অভাবে রেলপথের বিভিন্ন যন্ত্রাংশ চুরি হয়ে যাচ্ছে। পুরাতন এই লাইনকে নতুন করে মেরামতের দাবি জানান তারা।
  
এ বিষয়ে জানতে চাইলে শ্রীমঙ্গলস্থ রেলওয়ের উপসহকারী প্রকৌশলী -পথ- গুলজার আহমদ বলেন- রেলের এই সমস্যাগুলো দীর্ঘদিনের। লাইনের সমস্যা সমাধানে আমরা সবসময় কাজ করি। রেলপথে হুক- ক্লিপসহ লাইন মেরামত নিয়মিত করে থাকি। লাউয়াছড়া বনাঞ্চলে যে মাঝে মধ্যে ট্রেন আটকা পরে এ রকম ঘটনা আগেও হয়েছে। এখনো হচ্ছে। এই সমস্যা সমাধানের জন্য কাজ করা হচ্ছে। ঝুঁকিপূর্ণ কালভার্টগুলো সবসময় কাজ করা হয়। হুক- ক্লিপ চুরি হলে সেগুলো আমরা দ্রুতই লাগানোর চেষ্টা করি।
  
কুলাউড়া রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার রুমান আহমেদ- শ্রীমঙ্গল স্টেশন মাস্টার শাখাওয়াত হোসেন ও ভানুগাছ স্টেশন মাস্টার কবির আহমদ বলেন- ট্রেন আসার আগে লাইন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য যা যা প্রয়োজন আমরা তাই করি। আমাদের দায়িত্ব স্টেশনে। রেলপথ দেখাশোনার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ রয়েছে। তবে পুরাতন কাঠের লাইন থেকে মাঝে মধ্যে হুক-ক্লিপ চুরি হয়। নতুন পাকা লাইন থেকে এগুলো কম চুরি হয়। অতিরিক্ত তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলে কোথাও কোথাও লাইন বাকলিং হয়। এসব স্থানে আমারা পানি- কচুরিপানা বা কাদা মাটি ব্যবহার করি।
  
কুলাউড়া রেলওয়ে জংশনের সিনিয়র উপসহকারী প্রকৌশলী মো. আনিসুজ্জামান বলেন- আমাদের আয়ত্তে যত রেললাইন আছে এগুলো আমরা নিয়মিত লোক পাঠিয়ে মেরামত করি। যেখানে প্রয়োজন সেখানে নতুন স্লিপার লাগানো হয়। রেললাইনের নাট বা ক্লিপ কোথাও না থাকলে আমরা এগুলো আবার লাগিয়ে দেই। তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপরে তাপমাত্রা গেলে রেল লাইন মাঝে মধ্যে বাকলিং হয়। কারণ গরমে লোহা নরম হয়ে যায়। তবে অতিরিক্ত তাপমাত্রা হলে যেখানে প্রয়োজন সেখানে পানি বা কচুরিপানা ব্যবহার করি যাতে লাইন শীতল থাকে।

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ও অন্যান্য তথ্য সঞ্চয় করে রাখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

রূপগঞ্জে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রীর নির্দেশে নির্মিত চার সড়কের উদ্বোধন।।

পেকুয়ায় বেড়িবাঁধ ভেঙে লোকালয়ে প্লাবিত,২ শত পরিবার পানিবন্দী।।

নির্বাচনী প্রচারণার সময় ককটেল বিস্ফোরনের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন।।

নেই নাট ক্লিপ ঝুঁকি নিয়েই চলে -ট্রেন।।

আপডেট সময় : 08:48:54 am, Wednesday, 1 May 2024
মৌলভীবাজার-প্রতিনিধি।।
চুরি হচ্ছে নাট-বল্টু-ক্লিপ ঝুঁকি নিয়ে চলছে ট্রেনসিলেট-আখাউড়া রেলপথের শ্রীমঙ্গল থেকে কুলাউড়া পর্যন্ত বেশকিছু পাহাড়ি এলাকা- ৮টি কালভার্ট ও সেতু ঝুঁকিপূর্ণ। এই পথ দিয়ে ঝুঁকি নিয়েই চলছে ট্রেন। নাট-বল্টু বা ক্লিপ মাঝে মধ্যে পরিবর্তন করা হলেও রেললাইন সংস্কারের কোনো উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না। নাট-বল্টু বা ক্লিপার -ক্লিপ- না থাকায় তীব্র গরমে রেললাইন বেঁকে গিয়ে বাকলিং হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ ছাড়া নিয়মিত দেখাভালের অভাবে রেললাইনের ক্লিপ-হুক চুরি হচ্ছে প্রতিনিয়ত। কোথাও নাট থাকলেও বল্টু নেই। সেখানে বল্টুর পরিবর্তে সুতো দিয়ে বাধা হয়েছে।
  
সরেজমিনে দেখা গেছে, সিলেট-আখাউড়া রেলপথের শ্রীমঙ্গল থেকে কুলাউড়া পর্যন্ত রেললাইনের শ্রীমঙ্গল- ভানুগাছ- শমশেরনগর- মনু- টিলাগাঁও- লংলা ও কুলাউড়াস্টেশনের মাঝে অনেক স্থানে ক্লিপ-হুক নেই। ক্লিপ- হুক- ফিশ প্লেটসহ লোহার যন্ত্রাংশ চুরি হচ্ছে প্রতিনিয়ত। তবু কর্তৃপক্ষ নিরাপত্তার কোনো ব্যবস্থা করছে না। অনেক স্থানে রেললাইনের স্লিপারে নেই নাট-বল্টু। কোথাও নাট থাকলে বল্টুর পরিবর্তে সুতো দিয়ে বাঁধা হয়েছে। মেরামতের জন্য পুরাতন কাট ব্যবহার করা হয়েছে। অনেক যন্ত্রাংশ চুরি হওয়ার পরও লাগানো হচ্ছে না। এগুলো জোড়াতালি দিয়ে চালিয়ে দেওয়া হচ্ছে। নাট-বল্টু ও ক্লিপ না থাকার কারণে তীব্র গরমে লাইন বাকলিং হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। পুরাতন সেতু ও কালভার্ট ঝুঁকিপূর্ণ হলেও সংস্কার না হওয়ায় অনেক সময় বড় বড় দুর্ঘটনার কবলে পড়ে ট্রেন। ২০১৮ সালে মৌলভীবাজারের কুলাউড়া সেতু ভেঙে ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটে। গত বছর লাউয়াছড়ায় গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ট্রেনের কয়েকটি বগি উল্টে যায়। এ ছাড়া রেলপথ ত্রুটিপূর্ণ হওয়ায় লাউয়াছড়া উদ্যানের পাহাড়ি এলাকায় নিয়মিত ট্রেন আটকা পড়ে। ট্রেনের নিয়মিত যাত্রী ঝুলন চক্রবর্তী ও রুনা চক্রবর্তী বলেন, আমরা প্রায় সময় বিভিন্ন কাজে ট্রেনে আসা-যাওয়া করি। সিলেট থেকে শায়েস্তাগঞ্জ স্টেশন পর্যন্ত রেলপথ খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। এই অঞ্চলে ট্রেন চলার সময় অনেক ভয় হয়। কোথাও দ্রুতগতিতে চলে আবার কোথাও ধীরগতিতে। রেলওয়ের তদারকির অভাবে রেলপথের বিভিন্ন যন্ত্রাংশ চুরি হয়ে যাচ্ছে। পুরাতন এই লাইনকে নতুন করে মেরামতের দাবি জানান তারা।
  
এ বিষয়ে জানতে চাইলে শ্রীমঙ্গলস্থ রেলওয়ের উপসহকারী প্রকৌশলী -পথ- গুলজার আহমদ বলেন- রেলের এই সমস্যাগুলো দীর্ঘদিনের। লাইনের সমস্যা সমাধানে আমরা সবসময় কাজ করি। রেলপথে হুক- ক্লিপসহ লাইন মেরামত নিয়মিত করে থাকি। লাউয়াছড়া বনাঞ্চলে যে মাঝে মধ্যে ট্রেন আটকা পরে এ রকম ঘটনা আগেও হয়েছে। এখনো হচ্ছে। এই সমস্যা সমাধানের জন্য কাজ করা হচ্ছে। ঝুঁকিপূর্ণ কালভার্টগুলো সবসময় কাজ করা হয়। হুক- ক্লিপ চুরি হলে সেগুলো আমরা দ্রুতই লাগানোর চেষ্টা করি।
  
কুলাউড়া রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার রুমান আহমেদ- শ্রীমঙ্গল স্টেশন মাস্টার শাখাওয়াত হোসেন ও ভানুগাছ স্টেশন মাস্টার কবির আহমদ বলেন- ট্রেন আসার আগে লাইন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য যা যা প্রয়োজন আমরা তাই করি। আমাদের দায়িত্ব স্টেশনে। রেলপথ দেখাশোনার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ রয়েছে। তবে পুরাতন কাঠের লাইন থেকে মাঝে মধ্যে হুক-ক্লিপ চুরি হয়। নতুন পাকা লাইন থেকে এগুলো কম চুরি হয়। অতিরিক্ত তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলে কোথাও কোথাও লাইন বাকলিং হয়। এসব স্থানে আমারা পানি- কচুরিপানা বা কাদা মাটি ব্যবহার করি।
  
কুলাউড়া রেলওয়ে জংশনের সিনিয়র উপসহকারী প্রকৌশলী মো. আনিসুজ্জামান বলেন- আমাদের আয়ত্তে যত রেললাইন আছে এগুলো আমরা নিয়মিত লোক পাঠিয়ে মেরামত করি। যেখানে প্রয়োজন সেখানে নতুন স্লিপার লাগানো হয়। রেললাইনের নাট বা ক্লিপ কোথাও না থাকলে আমরা এগুলো আবার লাগিয়ে দেই। তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপরে তাপমাত্রা গেলে রেল লাইন মাঝে মধ্যে বাকলিং হয়। কারণ গরমে লোহা নরম হয়ে যায়। তবে অতিরিক্ত তাপমাত্রা হলে যেখানে প্রয়োজন সেখানে পানি বা কচুরিপানা ব্যবহার করি যাতে লাইন শীতল থাকে।