Dhaka , Saturday, 18 May 2024
নিবন্ধন নাম্বারঃ ১১০, সিরিয়াল নাম্বারঃ ১৫৪, কোড নাম্বারঃ ৯২
শিরোনাম ::
নির্বাচনী প্রচারণার সময় ককটেল বিস্ফোরনের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন।। সড়কের শৃংখলা নিয়ে মতবিনিময় করেছেন ওয়ারী ট্রাফিক পুলিশ।। রূপগঞ্জে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থীর পক্ষে প্রচারনা।। সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন চেয়ারম্যান প্রার্থী সফিউল ইসলাম।। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে দুর্গাপুরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত।। আনোয়ার খাঁন মডার্ণ ডায়াগনস্টিক সেন্টার রামগঞ্জ শাখার শুভ উদ্বোধন।।  প্রধানমন্ত্রীর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে ইবিতে ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল।। তিতাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত।। যমুনায় সিবিএ নির্বাচন- রবিউল সভাপতি শাহজাহান সম্পাদক নির্বাচিত।। আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব হলেন রামগঞ্জের কৃতি সন্তান আবদুর রহমান খাঁন।। মোরেলগঞ্জের পোলেরহাট বাজারে আগুনে ১১ টি দোকান পুড়ে ছাই-ক্ষতির পরিমান কোটি টাকা।। শরীয়তপুরে রাসেলস ভাইপার সাপ পিটিয়ে মারলো কৃষকরা।। ২২ বছর পর স্ত্রী হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত স্বামী গ্রেপ্তার।। জাজিরায় মাতৃদুগ্ধ বিষয়ে অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত।। ধামরাই সরকারি কলেজের অনার্স ৪র্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠিত।। মোরেলগঞ্জে তরুণ সংঘ ক্লাবের উদ্যোগে অধ্যক্ষ শাহাবুদ্দিন তালুকদারের স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত।। পাবনায় ফ্যানের বাতাসে ধান উড়াতে গি‌য়ে কৃষকের মৃত্যু।। মাদারীপুরে ভোক্তা অধিকারে অভিযান- দুই ব্যবসায়ীকে জরিমানা।। মোটরসাইকেল মার্কার উৎসবমুখর উঠান বৈঠক।। নারায়ণগঞ্জ টিভি সাংবাদিক ফোরামের ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা।। জাজিরা পৌর সড়কে বছর পেরোলেও আলোর মুখ দেখেনি আলোকসজ্জা প্রকল্প।। রামগঞ্জে আনারস প্রতীকের উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত।। পাবনায় পানি উন্নয়ন বোর্ডে -পাউবো- কর্মরত ৩৭ কর্মকর্তা-কর্মচারী একযোগে বদলি আবেদনে সমালোচনার ঝড়।। মোংলায় বীর মুক্তিযোদ্ধা আ: হামিদ শেখ কে গার্ড অব অনার।। দেবহাটায় পুষ্টি সপ্তাহ উদ্যাপন।। সখিপুর ইউনিয়ন স্ট্যান্ডিং কমিটির সভা।। দেবহাটা বাল্যবিবাহ ও নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে সভা।।  ঘুম থেকে উঠছে দেখতাম অস্ত্র আমাদের দিকে তাককরা- নাবিক রাজু।। দাউদকান্দিতে আইফোন না পেয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে এক কিশোরের আত্মহত্যা।। আটঘরিয়ায় হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে মোটরসাইকেল-ঘোড়া।।

ঈদ যাত্রাকে কেন্দ্র সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় প্রস্তুত হচ্ছে ১১০টি কোচ।।

  • Reporter Name
  • আপডেট সময় : 04:00:52 pm, Monday, 1 April 2024
  • 14 বার পড়া হয়েছে

ঈদ যাত্রাকে কেন্দ্র সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় প্রস্তুত হচ্ছে ১১০টি কোচ।।

নীলফামারী থেকে
সাদ্দাম আলী।।
ঈদ যাত্রাকে কেন্দ্র করে নিয়মিত ট্রেনের সঙ্গে ঈদের বিশেষ ট্রেনে অতিরিক্ত কোচ সংযোজনের জন্য প্রয়োজন হবে বাড়তি দুই শতাধিক কোচ। বাড়তি কোচের জোগান দিতে নির্ধারিত সময়ের বাইরেও অতিরিক্ত সময় কাজ করে পুরাতন কোচ মেরামতে ব্যস্ত সময় পার করছেন নীলফামারীর সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার শ্রমিক-কর্মচারীরা। প্রয়োজনের মাত্র ২৫ শতাংশ জনবল, বাজেট স্বল্পতা, উপকরণ সরবরাহসহ নানা সমস্যা নিয়েও এবারের ঈদযাত্রায় ১১০টি কোচ সংযুক্ত করতে যাচ্ছে কারখানাটি। এর মধ্যে রয়েছে ৮০টি ব্রডগেজ ও ৩০টি মিটারগেজ কোচ।
নানা সংকটের মধ্যেও চরম কর্মব্যস্ততায় সময় কাটছে কারখানাটির শ্রমিক-কর্মচারীদের। মেরামতকৃত এসব কোচ ঈদের বিশেষ ট্রেনগুলোতে সংযুক্ত করা হবে। রেলবহরে বাড়তি কোচগুলো যুক্ত হলে ঈদে ঘরমুখো মানুষের যাত্রাপথের ভোগান্তি কিছুটা হলেও লাঘব হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।
সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার জিওএইচ, উৎপাদন মেশিন শপ, ফাউন্ডি শপ, ক্যারেজ শপ, হুইল শপ, সিএমডব্লিউ শপ, ক্যারেজ শপ ও সিএইচআর শপ ঘুরে দেখা গেছে, ফাউন্ডি শপে ফানেস থেকে গলিত লোহা ডাবুতে ঢালা হচ্ছে। আর গলিত লোহা ছাঁচে ঢেলে তৈরী হচ্ছে প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ। এই যন্ত্রাংশগুলো চলে যাচ্ছে প্রয়োজন অনুযায়ী বিভিন্ন শপে। বড় বড় কামড়াগুলো লাইনে যার কাঁধে ভর করে চলে সেই চাকা মেরামতের সিএমডব্লিউ শপে একেকজন ব্যস্ত একেক কাজে। কেউ চাকা পরিস্কার করছে কেই ফিটিং করছে, কেউবা আবার টার্নি করে নির্দিষ্ট সেইপে আনছে চাকাগুলো। মানুষের কাজ সহজ করছে দৈত্যাকার সব মেশিন। কোথাও আবার মেরামত করা বগিকে নতুন করে রং লাগিয়ে চকচকে করে তোলা হচ্ছে। আবার কেউ ওয়েল্ডিং ও কোচের সিট মেরামতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। যেন দম ফেলার সময় নেই তাদের।
যদিও এ কারখানায় জনবল ও উপকরণ সংকটসহ নানা সমস্যা রয়েছে, তবুও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আন্তরিকতায় সব সময় কাজে গতি মেলে। জনবল সংকটের কারণে অতিরিক্ত সময়ও কাজ করতে হচ্ছে। তবুও মানুষের নিরাপদ ঈদযাত্রায় এই বাড়তি শ্রমেই আনন্দ খুঁজছেন তারা। কেউ কেউ আবার অতিরিক্ত কাজের মজুরি না পাওয়া নিয়ে ক্ষোভও প্রকাশ করেছেন।
 কারখানার কর্মরত শ্রমিক আব্দুল আউয়াল বলেন, ঈদের আগে প্রতিবারই আমাদের কাজের চাপ বেশি থাকে। কিন্তু প্রতিবছর যেমন টিএলআর(অস্থায়ী শ্রমিক) থাকে এবছর তেমন টিএলআর নাই। তাছাড়া আমাদের ওভারটাইম বন্ধ হয়ে গেছে যার কারনে সবার মন মানসিকতা তেমন একটা ভাল না। কারণ ওভারটাইম থাকলে অতিরিক্ত সময় দিয়ে গাড়িগুলো মেরামত করা যায়।
জয়নাব আলী নামে আরেক শ্রমিক  বলেন, জনগনের সেবা দেওয়া আমাদের কর্তব্য। প্রতি ঈদে যেন ঘরমুখী মানুষ যাতে ঠিকমত যাতায়ত করতে পারে সেই হিসেবে আমরা কাজ করি। কিন্তু বর্তমানে লোক সংখ্যা খুব কম। আর আমাদের ওভারটাইম নাই, আগে টিএলআর ছিল এবার তাও নাই।
সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় পুরোনো ট্রেনকে নতুন করার কাজ চলে আসছে ব্রিটিশ আমল থেকে। ব্রিটিশ সরকার ১৮৭০ সালে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানাটি স্থাপন করে। সেই সময় সৈয়দপুর কারখানায় কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শ্রমিকের সংখ্যা ছিল প্রায় ১০ হাজার। ধীরে ধীরে জনবল কমে যাওয়ার পরও এ কারখানায় প্রতিদিন একটি কোচ ও একটি ওয়াগন মেরামত করা হয়। এছাড়া রেলওয়ের নানা ধরনের যন্ত্রাংশ তৈরি করা হয় এখানে। কারখানাটির যান্ত্রিক শাখায় ২ হাজার ৮৫৯ জনবলের বিপরীতে কর্মরত রয়েছেন মাত্র ৮৬০ জন। প্রতিদিন সকাল ৭টা থেকে শুরু করে বিকেল ৪টা পর্যন্ত কাজ চলছে কারখানার ২৯টি বিভাগে। ইতোমধ্যে প্রস্তুত হওয়া ৮৫টি বগি চলে গেছে পাকশী ও লালমনিরহাট রেলওয়ে বিভাগের কাছে। আরও ২৫টি মেরামতের কাজ চলছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করার আশ্বাস কর্তৃপক্ষের।
কারখানার ক্যারেজ শপের ইনচার্জ মোমিনুল ইসলাম বলে, এবারেও আমাদের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনায় ১১০টি কোচ মেরামতের লক্ষ্যমাত্রা আমাদের উপর দেওয়া আছে। আমরা সেই লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। আমারদের শ্রমিক সংকট আছে। শ্রমিক নিয়োগ একটা চলমান প্রক্রিয়া। যে শ্রমিক আছে এগুলো দিয়ে কাজ এগিয়ে যাচ্ছি। কষ্ট হচ্ছে আবার ভালো লাগাও আছে।
সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্ত্বাবধায়ক -ডিএস-সাদেকুর রহমান ঢাকা মেইলকে বলেন, ১১০টি কোচ মেরামতের কাজ আমরা হাতে নিয়েছি। এর মধ্যে ৮৫টি কোচ মেরামত শেষে রেলের ট্রাফিক বিভাগে হস্তান্তর করা হয়েছে। বাকি কোচগুলো মেরামত করা হচ্ছে। কারখানার শ্রমিক-কর্মচারীদের আন্তরিকতায় এসব কোচ মেরামত কাজ চলছে।
সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় স্বাভাবিক সময় প্রতিমাসে গড়ে ৩০ কোচটি মেরামত করা হয়। কিন্তু সারাদেশে ঈদের আগে ও পরের পাঁচদিন বিশেষ ট্রেন চলাচল করবে। এছাড়াও নিয়মিত ট্রেনেও লাগানো হবে অতিরিক্ত কোচ। একারনে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় এবার ৫১ কর্মদিবসের মধ্যে ১১০টি যাত্রী কোচ ও ১৬টি পাওয়ার কোচ মেরামতের সিদ্ধান্ত হয়। ঈদযাত্রায় ১৬টি স্পেশাল ট্রেনে প্রতিদিন কমপক্ষে ২২ হাজার অতিরিক্ত মানুষ যাত্রা করতে পারবে।

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ও অন্যান্য তথ্য সঞ্চয় করে রাখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

রূপগঞ্জে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রীর নির্দেশে নির্মিত চার সড়কের উদ্বোধন।।

পেকুয়ায় বেড়িবাঁধ ভেঙে লোকালয়ে প্লাবিত,২ শত পরিবার পানিবন্দী।।

নির্বাচনী প্রচারণার সময় ককটেল বিস্ফোরনের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন।।

ঈদ যাত্রাকে কেন্দ্র সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় প্রস্তুত হচ্ছে ১১০টি কোচ।।

আপডেট সময় : 04:00:52 pm, Monday, 1 April 2024
নীলফামারী থেকে
সাদ্দাম আলী।।
ঈদ যাত্রাকে কেন্দ্র করে নিয়মিত ট্রেনের সঙ্গে ঈদের বিশেষ ট্রেনে অতিরিক্ত কোচ সংযোজনের জন্য প্রয়োজন হবে বাড়তি দুই শতাধিক কোচ। বাড়তি কোচের জোগান দিতে নির্ধারিত সময়ের বাইরেও অতিরিক্ত সময় কাজ করে পুরাতন কোচ মেরামতে ব্যস্ত সময় পার করছেন নীলফামারীর সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার শ্রমিক-কর্মচারীরা। প্রয়োজনের মাত্র ২৫ শতাংশ জনবল, বাজেট স্বল্পতা, উপকরণ সরবরাহসহ নানা সমস্যা নিয়েও এবারের ঈদযাত্রায় ১১০টি কোচ সংযুক্ত করতে যাচ্ছে কারখানাটি। এর মধ্যে রয়েছে ৮০টি ব্রডগেজ ও ৩০টি মিটারগেজ কোচ।
নানা সংকটের মধ্যেও চরম কর্মব্যস্ততায় সময় কাটছে কারখানাটির শ্রমিক-কর্মচারীদের। মেরামতকৃত এসব কোচ ঈদের বিশেষ ট্রেনগুলোতে সংযুক্ত করা হবে। রেলবহরে বাড়তি কোচগুলো যুক্ত হলে ঈদে ঘরমুখো মানুষের যাত্রাপথের ভোগান্তি কিছুটা হলেও লাঘব হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।
সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার জিওএইচ, উৎপাদন মেশিন শপ, ফাউন্ডি শপ, ক্যারেজ শপ, হুইল শপ, সিএমডব্লিউ শপ, ক্যারেজ শপ ও সিএইচআর শপ ঘুরে দেখা গেছে, ফাউন্ডি শপে ফানেস থেকে গলিত লোহা ডাবুতে ঢালা হচ্ছে। আর গলিত লোহা ছাঁচে ঢেলে তৈরী হচ্ছে প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ। এই যন্ত্রাংশগুলো চলে যাচ্ছে প্রয়োজন অনুযায়ী বিভিন্ন শপে। বড় বড় কামড়াগুলো লাইনে যার কাঁধে ভর করে চলে সেই চাকা মেরামতের সিএমডব্লিউ শপে একেকজন ব্যস্ত একেক কাজে। কেউ চাকা পরিস্কার করছে কেই ফিটিং করছে, কেউবা আবার টার্নি করে নির্দিষ্ট সেইপে আনছে চাকাগুলো। মানুষের কাজ সহজ করছে দৈত্যাকার সব মেশিন। কোথাও আবার মেরামত করা বগিকে নতুন করে রং লাগিয়ে চকচকে করে তোলা হচ্ছে। আবার কেউ ওয়েল্ডিং ও কোচের সিট মেরামতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। যেন দম ফেলার সময় নেই তাদের।
যদিও এ কারখানায় জনবল ও উপকরণ সংকটসহ নানা সমস্যা রয়েছে, তবুও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আন্তরিকতায় সব সময় কাজে গতি মেলে। জনবল সংকটের কারণে অতিরিক্ত সময়ও কাজ করতে হচ্ছে। তবুও মানুষের নিরাপদ ঈদযাত্রায় এই বাড়তি শ্রমেই আনন্দ খুঁজছেন তারা। কেউ কেউ আবার অতিরিক্ত কাজের মজুরি না পাওয়া নিয়ে ক্ষোভও প্রকাশ করেছেন।
 কারখানার কর্মরত শ্রমিক আব্দুল আউয়াল বলেন, ঈদের আগে প্রতিবারই আমাদের কাজের চাপ বেশি থাকে। কিন্তু প্রতিবছর যেমন টিএলআর(অস্থায়ী শ্রমিক) থাকে এবছর তেমন টিএলআর নাই। তাছাড়া আমাদের ওভারটাইম বন্ধ হয়ে গেছে যার কারনে সবার মন মানসিকতা তেমন একটা ভাল না। কারণ ওভারটাইম থাকলে অতিরিক্ত সময় দিয়ে গাড়িগুলো মেরামত করা যায়।
জয়নাব আলী নামে আরেক শ্রমিক  বলেন, জনগনের সেবা দেওয়া আমাদের কর্তব্য। প্রতি ঈদে যেন ঘরমুখী মানুষ যাতে ঠিকমত যাতায়ত করতে পারে সেই হিসেবে আমরা কাজ করি। কিন্তু বর্তমানে লোক সংখ্যা খুব কম। আর আমাদের ওভারটাইম নাই, আগে টিএলআর ছিল এবার তাও নাই।
সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় পুরোনো ট্রেনকে নতুন করার কাজ চলে আসছে ব্রিটিশ আমল থেকে। ব্রিটিশ সরকার ১৮৭০ সালে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানাটি স্থাপন করে। সেই সময় সৈয়দপুর কারখানায় কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শ্রমিকের সংখ্যা ছিল প্রায় ১০ হাজার। ধীরে ধীরে জনবল কমে যাওয়ার পরও এ কারখানায় প্রতিদিন একটি কোচ ও একটি ওয়াগন মেরামত করা হয়। এছাড়া রেলওয়ের নানা ধরনের যন্ত্রাংশ তৈরি করা হয় এখানে। কারখানাটির যান্ত্রিক শাখায় ২ হাজার ৮৫৯ জনবলের বিপরীতে কর্মরত রয়েছেন মাত্র ৮৬০ জন। প্রতিদিন সকাল ৭টা থেকে শুরু করে বিকেল ৪টা পর্যন্ত কাজ চলছে কারখানার ২৯টি বিভাগে। ইতোমধ্যে প্রস্তুত হওয়া ৮৫টি বগি চলে গেছে পাকশী ও লালমনিরহাট রেলওয়ে বিভাগের কাছে। আরও ২৫টি মেরামতের কাজ চলছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করার আশ্বাস কর্তৃপক্ষের।
কারখানার ক্যারেজ শপের ইনচার্জ মোমিনুল ইসলাম বলে, এবারেও আমাদের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনায় ১১০টি কোচ মেরামতের লক্ষ্যমাত্রা আমাদের উপর দেওয়া আছে। আমরা সেই লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। আমারদের শ্রমিক সংকট আছে। শ্রমিক নিয়োগ একটা চলমান প্রক্রিয়া। যে শ্রমিক আছে এগুলো দিয়ে কাজ এগিয়ে যাচ্ছি। কষ্ট হচ্ছে আবার ভালো লাগাও আছে।
সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্ত্বাবধায়ক -ডিএস-সাদেকুর রহমান ঢাকা মেইলকে বলেন, ১১০টি কোচ মেরামতের কাজ আমরা হাতে নিয়েছি। এর মধ্যে ৮৫টি কোচ মেরামত শেষে রেলের ট্রাফিক বিভাগে হস্তান্তর করা হয়েছে। বাকি কোচগুলো মেরামত করা হচ্ছে। কারখানার শ্রমিক-কর্মচারীদের আন্তরিকতায় এসব কোচ মেরামত কাজ চলছে।
সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় স্বাভাবিক সময় প্রতিমাসে গড়ে ৩০ কোচটি মেরামত করা হয়। কিন্তু সারাদেশে ঈদের আগে ও পরের পাঁচদিন বিশেষ ট্রেন চলাচল করবে। এছাড়াও নিয়মিত ট্রেনেও লাগানো হবে অতিরিক্ত কোচ। একারনে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় এবার ৫১ কর্মদিবসের মধ্যে ১১০টি যাত্রী কোচ ও ১৬টি পাওয়ার কোচ মেরামতের সিদ্ধান্ত হয়। ঈদযাত্রায় ১৬টি স্পেশাল ট্রেনে প্রতিদিন কমপক্ষে ২২ হাজার অতিরিক্ত মানুষ যাত্রা করতে পারবে।