Dhaka , Tuesday, 21 May 2024
নিবন্ধন নাম্বারঃ ১১০, সিরিয়াল নাম্বারঃ ১৫৪, কোড নাম্বারঃ ৯২
শিরোনাম ::
অধ্যাপক বিমল চন্দ্র দাসের বিরুদ্ধে অভিযোগ বিভিন্ন অনিয়মের ডিবি পরিচয়ে ছিনতাই হওয়া টাকা উদ্ধারে পুলিশের গড়িমসি।। দুর্গাপুরে সেতু নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন এমপি রুহী।। রাত পোহালে কালিয়াকৈর  উপজেলা পরিষদ নির্বাচন।। ইবির এমফিল ও পিএইডি প্রোগ্রামে ভর্তির আবেদন শুরু।। কালিয়াকৈরের অভিভাবক- কে হবেন।। তিতাসের পল্লীরাজ আইডিয়াল স্কুলে বার্ষিক ক্রীড়া- সাংস্কৃতিক ও পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত।। ইবির ইনস্টিটিউট অব কোয়ালিটি অ্যাসুরেন্স সেলের নতুন পরিচালক ড. শাহজাহান।। টানা দ্বিতীয় মেয়াদে ইবির জিয়া হলের প্রভোস্ট হলেন ড. জাকির।। লক্ষ্মীপুরের দুই উপজেলায় রাত পোহালেই ভোট উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে।। ৭ লাখ ইয়াবাভর্তি পাজেরোসহ মাদকসম্রাট গ্রেপ্তার।। টেকনাফে অস্ত্র-গুলিসহ ১০ মামলার আসামি গ্রেপ্তার।। চকরিয়ায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত।। রাত পোহালেই-নোয়াখালীর তিন উপজেলায় ভোট।। ইবিতে আটকে গেল শিক্ষকদের প্রমোশন- শাপলার অসন্তোষ।। সেনবাগে প্রতিপক্ষ প্রার্থীর এজেন্টদের হত্যার হুমকি- কেন্দ্রে যেতে নিষেধ।। হোমনা উপজেলা নির্বাচনের ৮ জন প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ।। ইবিতে ভূমি ব্যবস্থাপনায় তথ্য অধিকার আইন শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত।। তিতাসের জিয়ারকান্দি ইউনিয়ন আ.লীগ অফিসের জায়গা পরিদর্শন করেন-স্থানীয় এমপি ইঞ্জিনিয়ার আবদুস সবুর।। ইবির সিন্ডিকেট- বিরোধিতার মুখে ভণ্ডুল নিয়োগ-পদোন্নতি।। শরীয়তপুরে প্রার্থীর টাকা নিতে অস্বীকৃতি প্রকাশ করায় পোলিং অফিসারকে মারধরের অভিযোগ।। ইরানের প্রেসিডেন্ট এব্রাহিম রাইসি হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় মৃত্যু! ঈশ্বরদীতে রেল নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য ফেনসিডিলসহ আটক।। গণধর্ষণের ঘটনা রাজনৈতিকভাবে অপব্যবহারের অভিযোগ বাদীর।। হিলির পাইকারি বাজারে জিরার দাম  ঊর্ধ্বমূখী প্রতি কেজি প্রতি বেড়েছে ১শ থেকে ১শ ২০ টাকা।। আর মাত্র ১দিন পরেই উপজেলা পরিষদ নির্বাচন  রামগঞ্জে জমে উঠেছে ভোটের মাঠ।।  হাতিয়াতে ৩০ কেজি হরিণের মাংস জব্দ।। আশুলিয়ায় নিবন্ধনহীন দুই বেসরকারি হাসপাতাল সিলগালা।। কমলগঞ্জের ফায়ার সার্ভিসের অগ্নি নির্বাপণ মহড়া অনুষ্ঠিত।। মোরেলগঞ্জে দুদকের উদ্যোগে রচনা ও বিতর্ক প্রতিযোগিত অনুষ্ঠিত।।

সদরপুরে লালমি উৎপাদনের সম্ভাবনা প্রয়োজন সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা।।

  • Reporter Name
  • আপডেট সময় : 08:43:26 am, Thursday, 29 February 2024
  • 98 বার পড়া হয়েছে

সদরপুরে লালমি উৎপাদনের সম্ভাবনা প্রয়োজন সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা।।

শিমুল তালুকদার
সদরপুর থেকে।।
আসন্ন রমজান মাস কে সামনে রেখে লালমি এবং বাঙ্গি উৎপাদনের লক্ষে ক্ষেত পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন সদরপুর উপজেলার বাঙ্গি এবং লালমি আবাদিরা।  আসন্ন  রমজান মাসকে  ঘিরে অনেক আসা নিয়ে লালমি ও বাঙ্গি চাষিরা লালমি আবাদ করেছেন। বর্তমানে খেতের পরিচর্যা নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন তারা। ইতি মধ্যেই গাছের ফল অনেক বড় হয়ে গেছে। রমজান মাসের প্রথম দিন থেকেই বিক্রি শুরু হবে। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে মহাজনরা পাইকারি লালমি কিনে নিয়ে যায় ঢাকা সহ বিভিন্ন এলাকায়। প্রতিবছর পবিত্র রমজান মাসের প্রথম দিন থেকেই ফরিদপুর জেলার বিভিন্ন উপজেলায় লালমি ও বাঙ্গি উৎপাদনে ব্যস্ত হয়ে পরেন স্থানীয় কৃষকরা।
তারই ধারাবাহিকতায় এবার আরো বেসি জমিতে বাঙ্গি ও লালমির আবাদ করেছেন চাষিরা। স্থানীয় কয়েকজন কৃষক জানান, অনুকুল আবহাওয়া, সময়মত বিজ্ব বপন, সঠিক মাত্রায় সার এবং কীটনাশক প্রয়োগ করার কারনে এবার উৎপাদন ভালো হবে বলে জানান তারা। তবে গাছে মুছি-ফল-আসার পরে শিতের কারনে মুছি সুকিয়ে যাওয়ার কারনে ক্ষতির সম্মুখিন হতে হয় কৃষকদের। তাছারা বালিয়া পোকা, সাদা মাছির আক্রমন ঠেকাতে সময় মত কীটনাশক ব্যবহার না করলে ফলন ভালো হয়না বলে জানান বাদশা নামক স্থানীয় কৃষক।  প্রতি বিঘা জমিতে লালমি চাষে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা খরজ হয় বলেও জানান তিনি। শৌলডুবী গ্রামের লালমি আবাদি বাচ্চু মুন্সি জানান, সরকারি ভাবে যদি আমাদের প্রতি সু-দৃষ্টি দেওয়া হতো তবে সদরপুরে আরো অনেক বেসি পরিমানে লালমি উৎপাদন করা যেত। এ ব্যাপারে সদরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নিটুল রায় বলেন, চলতি মৌসুমে সদরপুর উপজেলায় মোট ৩২৭ হেক্টর জমিতে লালমি আবাদ করা হয়েছে।
সরকারি ভাবে লালমি আবাদিদের আর্থিক সহযোগিতা বা প্রনোদনার  ব্যবস্থা না থাকলেও কৃষকদের সকল প্রকার পরামর্শ ও বিভিন্ন প্রকার দিক নির্দেশনা দেওয়া হয়। এছাড়াও কৃষকরা যাতে করে তাদের উৎপাদিত লালমি বেসি দামে বিক্রি করতে যাতে কোন প্রকার প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি না হয় সেদিকেও আমরা দৃষ্টি রাখবো বলে জানান তিনি। উল্লেখ্য প্রতি রমজান মাসে সদরপুর উপজেলার হাট কৃষ্ণপুর, ইউছুপ বেপারীর হাট, মজুন্দার বাজার, কাটাখালি, যাত্রাবাড়ি, বাধানো ঘাট, মটুকচর, শ্যামপুর, নয়াচর, সদরপুর সহ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে প্রচুর পরিমান বাঙ্গী ও লালমির হাট বসে। পাইকাররা প্রতিদিন লালমি কিনে ঢাকা সহ বিভিন্ন এলাকার আড়তে নিয়ে যায়। অনেক আগে থেকেই ফরিদপুর জেলার সদরপুরে উন্নত মানের বাঙ্গী ও লালমি উৎপাদনে সুনাম অর্জন করে আসছে। স্থানীয় কৃষকরা প্রতি রমজান মাস আসার আগেই বিপুল আশা আকাঙ্ক্ষা নিয়ে লালমি উৎপাদনে ব্যস্থ হয়ে পরেন।

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ও অন্যান্য তথ্য সঞ্চয় করে রাখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

রূপগঞ্জে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রীর নির্দেশে নির্মিত চার সড়কের উদ্বোধন।।

পেকুয়ায় বেড়িবাঁধ ভেঙে লোকালয়ে প্লাবিত,২ শত পরিবার পানিবন্দী।।

অধ্যাপক বিমল চন্দ্র দাসের বিরুদ্ধে অভিযোগ বিভিন্ন অনিয়মের

সদরপুরে লালমি উৎপাদনের সম্ভাবনা প্রয়োজন সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা।।

আপডেট সময় : 08:43:26 am, Thursday, 29 February 2024
শিমুল তালুকদার
সদরপুর থেকে।।
আসন্ন রমজান মাস কে সামনে রেখে লালমি এবং বাঙ্গি উৎপাদনের লক্ষে ক্ষেত পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন সদরপুর উপজেলার বাঙ্গি এবং লালমি আবাদিরা।  আসন্ন  রমজান মাসকে  ঘিরে অনেক আসা নিয়ে লালমি ও বাঙ্গি চাষিরা লালমি আবাদ করেছেন। বর্তমানে খেতের পরিচর্যা নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন তারা। ইতি মধ্যেই গাছের ফল অনেক বড় হয়ে গেছে। রমজান মাসের প্রথম দিন থেকেই বিক্রি শুরু হবে। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে মহাজনরা পাইকারি লালমি কিনে নিয়ে যায় ঢাকা সহ বিভিন্ন এলাকায়। প্রতিবছর পবিত্র রমজান মাসের প্রথম দিন থেকেই ফরিদপুর জেলার বিভিন্ন উপজেলায় লালমি ও বাঙ্গি উৎপাদনে ব্যস্ত হয়ে পরেন স্থানীয় কৃষকরা।
তারই ধারাবাহিকতায় এবার আরো বেসি জমিতে বাঙ্গি ও লালমির আবাদ করেছেন চাষিরা। স্থানীয় কয়েকজন কৃষক জানান, অনুকুল আবহাওয়া, সময়মত বিজ্ব বপন, সঠিক মাত্রায় সার এবং কীটনাশক প্রয়োগ করার কারনে এবার উৎপাদন ভালো হবে বলে জানান তারা। তবে গাছে মুছি-ফল-আসার পরে শিতের কারনে মুছি সুকিয়ে যাওয়ার কারনে ক্ষতির সম্মুখিন হতে হয় কৃষকদের। তাছারা বালিয়া পোকা, সাদা মাছির আক্রমন ঠেকাতে সময় মত কীটনাশক ব্যবহার না করলে ফলন ভালো হয়না বলে জানান বাদশা নামক স্থানীয় কৃষক।  প্রতি বিঘা জমিতে লালমি চাষে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা খরজ হয় বলেও জানান তিনি। শৌলডুবী গ্রামের লালমি আবাদি বাচ্চু মুন্সি জানান, সরকারি ভাবে যদি আমাদের প্রতি সু-দৃষ্টি দেওয়া হতো তবে সদরপুরে আরো অনেক বেসি পরিমানে লালমি উৎপাদন করা যেত। এ ব্যাপারে সদরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নিটুল রায় বলেন, চলতি মৌসুমে সদরপুর উপজেলায় মোট ৩২৭ হেক্টর জমিতে লালমি আবাদ করা হয়েছে।
সরকারি ভাবে লালমি আবাদিদের আর্থিক সহযোগিতা বা প্রনোদনার  ব্যবস্থা না থাকলেও কৃষকদের সকল প্রকার পরামর্শ ও বিভিন্ন প্রকার দিক নির্দেশনা দেওয়া হয়। এছাড়াও কৃষকরা যাতে করে তাদের উৎপাদিত লালমি বেসি দামে বিক্রি করতে যাতে কোন প্রকার প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি না হয় সেদিকেও আমরা দৃষ্টি রাখবো বলে জানান তিনি। উল্লেখ্য প্রতি রমজান মাসে সদরপুর উপজেলার হাট কৃষ্ণপুর, ইউছুপ বেপারীর হাট, মজুন্দার বাজার, কাটাখালি, যাত্রাবাড়ি, বাধানো ঘাট, মটুকচর, শ্যামপুর, নয়াচর, সদরপুর সহ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে প্রচুর পরিমান বাঙ্গী ও লালমির হাট বসে। পাইকাররা প্রতিদিন লালমি কিনে ঢাকা সহ বিভিন্ন এলাকার আড়তে নিয়ে যায়। অনেক আগে থেকেই ফরিদপুর জেলার সদরপুরে উন্নত মানের বাঙ্গী ও লালমি উৎপাদনে সুনাম অর্জন করে আসছে। স্থানীয় কৃষকরা প্রতি রমজান মাস আসার আগেই বিপুল আশা আকাঙ্ক্ষা নিয়ে লালমি উৎপাদনে ব্যস্থ হয়ে পরেন।