Dhaka , Thursday, 30 May 2024
নিবন্ধন নাম্বারঃ ১১০, সিরিয়াল নাম্বারঃ ১৫৪, কোড নাম্বারঃ ৯২
শিরোনাম ::
রামগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধে ১ জন নিহত।। তিতাসে বলগেটের ধাক্কায় সেতু ভেংগে নদীতে, জনসাধারণের চরম ভোগান্তি।। সাতক্ষীরার কালীগঞ্জে নারীর অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার।। দেবহাটায় জাতীয় ভিটামিন-এ প্লাস ক্যাম্পেইন-এ্যাডভোকেসি ও পরিকল্পনা সভা।। দেবহাটা উপজেলা নির্বাচনে নবনির্বাচিতদের সংবর্ধনা।। আমতলীতে ঘূর্নিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন ও ত্রাণ বিতরণ।। রেমালের আক্রমনে মোরেলগঞ্জে ২ লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দী।। ৪৮ ঘন্টা বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন পবিপ্রবি- ভোগান্তিতে শিক্ষার্থীরা।। রূপগঞ্জে শেখ হাসিনা সরণির মূলসড়কের পরিবর্তে সার্ভিস রোডে বিআরটিসি বাস চলাচলের দাবি।। হিলিতে জাতীয় ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন উপলক্ষে অবহিতকরন ও পরিকল্পনা সভা অনুষ্ঠিত।। দেশের উন্নয়নে সেবাইত-পুরোহিতদের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ-ধর্মমন্ত্রী।। রূপগঞ্জে তাঁতিদের মাঝে পলিস্টার সুতা বিতরণ।। নরসিংদীতে ইউপির সাবেক চেয়ারম্যানকে  কুপিয়ে হত্যা।। শিক্ষার্থীদের চাকরি খোঁজা নয়, চাকরি দেয়ার জায়গাটায় নিজেদের তৈরি করতে হবে- ইবি উপাচার্য।। কোম্পানীগঞ্জে ভোট থেকে সরে দাঁড়ালেন ২ প্রার্থী।। হোমনায় মোটরসাইকেল প্রতীকের উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত।। নীলফামারতে চলছে ভোট গ্রহননীলফামারতে চলছে ভোট গ্রহন।। পাবনার ৩ উপজেলার কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছেছে নির্বাচনী  সরঞ্জাম।। প্রথম আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতা বাংলাদেশ ২০২৪ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ধর্মমন্ত্রী-লাল-সবুজের পতাকার সম্মান বৃদ্ধি করতে হবে।। রিমালে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে এমপি হাবিবুন নাহার।। রেমালের আক্রমনে  লন্ডভন্ড মোরেলগঞ্জ।।  ইবির ধর্মতত্ত্বে ১ম মেধাতালিকার ভর্তি শুরু পহেলা জুন।। দিনাজপুরের হিলিতে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ উপলক্ষে র‍্যালি ও আলোচনাসভা-পুরস্কার বিতরণ।। তিতাসে সাব রেজিস্ট্রার হিসেবে শরীফুল ইসলামের যোগদান।। সরঞ্জাম বিতরণ নীলফামারীতে।। সাভারে সাংবাদিক আকাশকে মারধরের ঘটনায় গ্রেফতার ২।। আশ্রয় কেন্দ্র থেকে বাড়ি ফেরার পথে পানিতে পড়ে শিশুর মৃত্যু।। চোখের সামনে ভেসে গেল ২ হাজার গবাদিপশু ও ১০ দোকান।। নোয়াখালীতে ট্রেনে কাটা পড়ে নারীর মৃত্যু।। হিলিতে বোরো ধান সংগ্রহের লক্ষ্যে উন্মুক্ত লটারীর মাধ্যমে কৃষক নির্বাচন।।

নীলফামারীতে তৈরী হচ্ছে আইল্যাশ পাপড়ি।।

  • Reporter Name
  • আপডেট সময় : 07:03:26 am, Sunday, 25 February 2024
  • 378 বার পড়া হয়েছে

নীলফামারীতে তৈরী হচ্ছে  আইল্যাশ পাপড়ি।।

সাদ্দাম আলী
নীলফামারী থেকে।।

নারী সৌন্দর্যের অন্যতম অনুষঙ্গ চোখের পাপড়ি বা আইল্যাশ। আধুনিক নারীদের কাছে এর চাহিদা আকাশছোঁয়া। আর এই চোখের কৃত্রিম পাপড়ি তৈরি হচ্ছে উত্তরের জেলা নীলফামারী বানিজ্যিক শহর  সৈয়দপুর। নারী উদ্যোক্তা মিন্নি আকতার মিথুনের ‘মিন্নি ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল’ এসব পাপড়ি তৈরি করে বিদেশে রপ্তানি করছেন। এতে করে কারখানায় যেমন নারী-পুরুষের কর্মসংস্থান হয়েছে; তেমনি তৈরী হয়েছে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের সম্ভবনা।

সৈয়দপুর শহরের উপকণ্ঠে ওয়াপদা মোড়ে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের নিচ তলা ভাড়া নিয়ে গড়ে তোলা হয়েছে ‘মিন্নি ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল’। সেখানে ২৫ জন নারী ও ৫ জন পুরুষ সকাল ৮টা থেকে ৫টা পর্যন্ত তৈরি করছেন চোখের কৃত্রিম পাঁপড়ি। প্রতিদিন কাজ করে শ্রমিকরা পাচ্ছেন ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা। 

নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরের নিমবাগান এলাকার অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা একেএম মোস্তাফিজুর রহমানের মেয়ে মিন্নি আকতার । ভালোবেসে ২০২৩ সালের  ১৮ জুলাই চীনের গুয়ানডং শহরের চিশুয়ী টাউনের লীন সিংকের ছেলে লীন ঝানরুইকে বিয়ে করেন মিন্নি। বিয়ের পর লীন ঝানরুই মুসলমান হয়ে নাম রাখেন লাবিব ইসলাম। উত্তরা ইপিজেডের টিএইচটি-স্পেস ইলেট্রিক্যাল কোম্পানিতে টেকনিশিয়ান হিসেবে কর্মরত ছিলেন চীনা নাগরিক লীন ঝানরুই। একই কোম্পানিতে চাকরি করতেন মিন্নি। ২০২২ সালের আগস্ট মাসে সৈয়দপুর শহরের একটি কমিউনিটি সেন্টারে এক সহকর্মীর বিয়ের অনুষ্ঠানে লীন ঝানরুই ও মিন্নির পরিচয় হয়। সেই পরিচয় থেকে গড়ে ওঠে প্রেমের সম্পর্ক, তারপর বিয়ে করেন তারা। সম্প্রতি স্বামী-স্ত্রী ও অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা বাবা মিলে গড়ে তোলেন এই পাপড়ি তৈরির প্রতিষ্ঠান।

কারখানায় কর্মরত শ্রমিকেরা বলছেন, এখানে কাজ করে নিজেদের পায়ে দাঁড়াতে পারছেন পাশাপাশি সংসারে স্বচ্ছলতা ফেরাতে চান তারা। কারখানার শ্রমিক চাঁদনী বেগম  বলেন, বাচ্ছা  রেখে কাজে এসেছি।ময়না রানী বলেন আমার এখানে কাজ করে খুব ভালো লাগছে। কাজ করা খুব সোজা। আর কাজ করলে কাজে ভুল ভ্রান্তি থাকবেই। যেকোন ক্ষেত্রে সেটা হোক। কিন্তু মিন্নি আপা তিনি আমাদেরকে সাহায্য করেন। আমরা এখানে কাজ করে স্বাবলম্বী হতে পারবো।
মিন্নি ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল ম্যানেজার মিন্নি বলেন, আমরা চাচ্ছি এই আইল্যাশ প্রস্তুতের মাধ্যমে আমরা সৈয়দপুরের বেকার নিরসন করবো। সেই কারণে ছোট পরিসরে কোম্পানি চালু করেছি। যেখানে ৩৫ জনের মতো কাজ করছে। আমরা চাই এই ক্ষুদ্র পরিসরটা আগামীতে বৃহৎ আকার ধারণ করবে। নতুন নতুন শ্রমিককে আমরা প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ গড়ে তুলবো। এ মাসে আমাদের পাঁচ হাজার পিস প্রোডাকশন হয়েছে যেটা নতুন অবস্থায় কেনো অংশে কম না। আশা করছি আগামী মাসে আমরা ৫০ হাজার পিস উৎপাদন করতে পারবো এবং আমাদের প্রোডাক্ট সরাসরি চীনে যাবে। সেখান থেকে এটি প্রস্তুত হয়ে বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়বে।

প্রতিষ্ঠানটির উপদেষ্টা চীনা নাগরিক লীন ঝানরুই  বলেন, আমরা আপাতত জায়গাটা ভাড়া নিয়ে প্রোডাকশন চালু করেছি। আমরা চোখের পাপড়ি বানাই। আমাদের কাঁচামাল পুরোটাই চীন থেকে আসে। আমরা নতুন করে কেবল শুরু করেছি আর কিছু লোকবল নিয়েছি তাদেরকে শিখাচ্ছি। আপাতত যে ফিনিশ প্রোডাক্টটা বের হচ্ছে সেটি সম্পন্ন এখনও প্রস্তুত হয়নি। এই আংশিক প্রস্তুতটাই চীনে পাঠানো হচ্ছে। অমাদের আগামীতে পরিকল্পনা রয়েছে এখানে ৩০০ জন শ্রমিক কাজ করাবো।

কারখানাটির চেয়ারম্যান একেএম মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, কোম্পানীর পথচলা বলতে গেলে একমাস। আমার এখানে ২০০ শ্রমিক কাজ করানো টার্গেট ছিল। কাজটা যেহেতু শিল্পকর্মের মতো কাজটাকে বুঝে শুনে করতে হয়। যে কারণে সকলে চট করে সেটা করতে পারছে না। শেখানো পর কাজ করানো লাগতেছে। তারপরেও সব মিলে ৫০ জনের মতো কাজ করছে।

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ও অন্যান্য তথ্য সঞ্চয় করে রাখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

রূপগঞ্জে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রীর নির্দেশে নির্মিত চার সড়কের উদ্বোধন।।

পেকুয়ায় বেড়িবাঁধ ভেঙে লোকালয়ে প্লাবিত,২ শত পরিবার পানিবন্দী।।

রামগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধে ১ জন নিহত।।

নীলফামারীতে তৈরী হচ্ছে আইল্যাশ পাপড়ি।।

আপডেট সময় : 07:03:26 am, Sunday, 25 February 2024
সাদ্দাম আলী
নীলফামারী থেকে।।

নারী সৌন্দর্যের অন্যতম অনুষঙ্গ চোখের পাপড়ি বা আইল্যাশ। আধুনিক নারীদের কাছে এর চাহিদা আকাশছোঁয়া। আর এই চোখের কৃত্রিম পাপড়ি তৈরি হচ্ছে উত্তরের জেলা নীলফামারী বানিজ্যিক শহর  সৈয়দপুর। নারী উদ্যোক্তা মিন্নি আকতার মিথুনের ‘মিন্নি ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল’ এসব পাপড়ি তৈরি করে বিদেশে রপ্তানি করছেন। এতে করে কারখানায় যেমন নারী-পুরুষের কর্মসংস্থান হয়েছে; তেমনি তৈরী হয়েছে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের সম্ভবনা।

সৈয়দপুর শহরের উপকণ্ঠে ওয়াপদা মোড়ে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের নিচ তলা ভাড়া নিয়ে গড়ে তোলা হয়েছে ‘মিন্নি ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল’। সেখানে ২৫ জন নারী ও ৫ জন পুরুষ সকাল ৮টা থেকে ৫টা পর্যন্ত তৈরি করছেন চোখের কৃত্রিম পাঁপড়ি। প্রতিদিন কাজ করে শ্রমিকরা পাচ্ছেন ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা। 

নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরের নিমবাগান এলাকার অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা একেএম মোস্তাফিজুর রহমানের মেয়ে মিন্নি আকতার । ভালোবেসে ২০২৩ সালের  ১৮ জুলাই চীনের গুয়ানডং শহরের চিশুয়ী টাউনের লীন সিংকের ছেলে লীন ঝানরুইকে বিয়ে করেন মিন্নি। বিয়ের পর লীন ঝানরুই মুসলমান হয়ে নাম রাখেন লাবিব ইসলাম। উত্তরা ইপিজেডের টিএইচটি-স্পেস ইলেট্রিক্যাল কোম্পানিতে টেকনিশিয়ান হিসেবে কর্মরত ছিলেন চীনা নাগরিক লীন ঝানরুই। একই কোম্পানিতে চাকরি করতেন মিন্নি। ২০২২ সালের আগস্ট মাসে সৈয়দপুর শহরের একটি কমিউনিটি সেন্টারে এক সহকর্মীর বিয়ের অনুষ্ঠানে লীন ঝানরুই ও মিন্নির পরিচয় হয়। সেই পরিচয় থেকে গড়ে ওঠে প্রেমের সম্পর্ক, তারপর বিয়ে করেন তারা। সম্প্রতি স্বামী-স্ত্রী ও অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা বাবা মিলে গড়ে তোলেন এই পাপড়ি তৈরির প্রতিষ্ঠান।

কারখানায় কর্মরত শ্রমিকেরা বলছেন, এখানে কাজ করে নিজেদের পায়ে দাঁড়াতে পারছেন পাশাপাশি সংসারে স্বচ্ছলতা ফেরাতে চান তারা। কারখানার শ্রমিক চাঁদনী বেগম  বলেন, বাচ্ছা  রেখে কাজে এসেছি।ময়না রানী বলেন আমার এখানে কাজ করে খুব ভালো লাগছে। কাজ করা খুব সোজা। আর কাজ করলে কাজে ভুল ভ্রান্তি থাকবেই। যেকোন ক্ষেত্রে সেটা হোক। কিন্তু মিন্নি আপা তিনি আমাদেরকে সাহায্য করেন। আমরা এখানে কাজ করে স্বাবলম্বী হতে পারবো।
মিন্নি ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল ম্যানেজার মিন্নি বলেন, আমরা চাচ্ছি এই আইল্যাশ প্রস্তুতের মাধ্যমে আমরা সৈয়দপুরের বেকার নিরসন করবো। সেই কারণে ছোট পরিসরে কোম্পানি চালু করেছি। যেখানে ৩৫ জনের মতো কাজ করছে। আমরা চাই এই ক্ষুদ্র পরিসরটা আগামীতে বৃহৎ আকার ধারণ করবে। নতুন নতুন শ্রমিককে আমরা প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ গড়ে তুলবো। এ মাসে আমাদের পাঁচ হাজার পিস প্রোডাকশন হয়েছে যেটা নতুন অবস্থায় কেনো অংশে কম না। আশা করছি আগামী মাসে আমরা ৫০ হাজার পিস উৎপাদন করতে পারবো এবং আমাদের প্রোডাক্ট সরাসরি চীনে যাবে। সেখান থেকে এটি প্রস্তুত হয়ে বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়বে।

প্রতিষ্ঠানটির উপদেষ্টা চীনা নাগরিক লীন ঝানরুই  বলেন, আমরা আপাতত জায়গাটা ভাড়া নিয়ে প্রোডাকশন চালু করেছি। আমরা চোখের পাপড়ি বানাই। আমাদের কাঁচামাল পুরোটাই চীন থেকে আসে। আমরা নতুন করে কেবল শুরু করেছি আর কিছু লোকবল নিয়েছি তাদেরকে শিখাচ্ছি। আপাতত যে ফিনিশ প্রোডাক্টটা বের হচ্ছে সেটি সম্পন্ন এখনও প্রস্তুত হয়নি। এই আংশিক প্রস্তুতটাই চীনে পাঠানো হচ্ছে। অমাদের আগামীতে পরিকল্পনা রয়েছে এখানে ৩০০ জন শ্রমিক কাজ করাবো।

কারখানাটির চেয়ারম্যান একেএম মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, কোম্পানীর পথচলা বলতে গেলে একমাস। আমার এখানে ২০০ শ্রমিক কাজ করানো টার্গেট ছিল। কাজটা যেহেতু শিল্পকর্মের মতো কাজটাকে বুঝে শুনে করতে হয়। যে কারণে সকলে চট করে সেটা করতে পারছে না। শেখানো পর কাজ করানো লাগতেছে। তারপরেও সব মিলে ৫০ জনের মতো কাজ করছে।